script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-9028963340093233" crossorigin="anonymous"> #autoAds
মোবাইল ফোন স্লো

মোবাইল ফোন স্লো থেকে ফার্স্ট করার ৫টি উপায়

আমি আজ আপনাদের দেখাবো যে, আপনার মোবাইল ফোন স্লো থেকে কিভাবে ফাস্ট করবেন। একটা মোবাইল কিনার কিছুদিন পরেই দেখা যায়, মোবাইল ফোন স্লো কাজ করতে থাকে। এসময় মোবাইলটাকে কিভাবে ফাস্ট করবেন! কোন কোন কাজগুলো করলে মোবাইল ফোন স্লো হয়ে যায় এবং কিভাবে স্লো মোবাইল ফাস্ট করতে হয়?
৫ টি কাজ করুন মোবাইল ফাস্ট হয়ে যাবে - Fast Your Slow Mobile

 

এই বিষয়গুলো আজকের এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব। আপনি খুব সহজেই আপনার স্লো মোবাইল ফোনটা কে ফাস্ট করতে পারবেন। সেই জন্য এই আর্টিকেল আপনাকে পুরোটা পড়তে হবে।

কি কি কারনে মোবাইল ফোন স্লো হয় এবং কোন কোন বিষয়গুলো এড়িয়ে চললে বা কোন কোন কাজগুলো করলে আপনার স্লো মোবাইলটাকে ফাস্ট করতে পারবেন এই সকল বিষয় এখন আমি আপনাদেরকে বিস্তারিত বলে দিবো। চলুন স্টেপ বাই স্টেপ দেখে নেই “কিভাবে আপনার স্লো স্মার্টফোন টা কে ফাস্ট করবেন”।

১। স্মার্টফোন সব সময় আপডেট রাখুনঃ

একটা মোবাইল ফোন স্লো হওয়ার প্রধান কারণ হলো ফোনটা কে আপডেট না করা। যখন আপনার অপারেটিং সিস্টেমে আপডেট চলে আসবে তখন আপনার উচিত হবে অপারেটিং সিস্টেম টাকে আপডেট করা। স্মার্টফোন সব সময় আপডেটেড অপরেটিং সিস্টম (OS) ব্যবহার করা উচিত। 

আপনার ফোনের সেটিংস এ গিয়ে দেখবেন আপনার ফোন আপডেট আসছে কিনা যদি নতুন আপডেট এসে থাকে তাহলে আপনি আপডেট দিয়ে দিবেন। সেক্ষেত্রে আপনার স্লো মোবাইলটা পূর্বের থেকে ফাস্ট কাজ করবে।

২। ইন্টারনাল স্টোরেজ ফ্রি রাখুনঃ

আপনার মোবাইল ফোনের যে ইন্টারনাল স্টোরেজ আছে সেটি কখনোই একদম ফুল রাখবেন না। কিছুটা ফাঁকা রাখবেন। সে ক্ষেত্রে মোবাইলটা একটু ফাস্ট কাজ করবে। যখন আপনার মোবাইলের ইন্টারনাল স্টোরেজ একদম ফুল হয়ে যাবে তখন খেয়াল করবেন আপনার মোবাইল ফোন স্লো হয়ে যাবে। 

তাই সবসময় চেষ্টা করবেন যতটা সম্ভব ইন্টারনাল স্টোরেজে জায়গা ফাঁকা রাখা। এর জন্য আপনি চাইলে আলাদা কোনো ভালো ব্র্যান্ডের মেমোরি কার্ড ব্যবহার করতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনার স্লো মোবাইলটা ফাস্ট হয়ে যাবে। 

কিভাবে মোবাইল স্টোরেজ খালি করবেন জানতে পড়ুন ঃ

মোবাইলের স্টোরেজ খালি করুন সহজেই

মোবাইল ফোন স্লো থেকে ফার্স্ট করার ৫টি উপায়

৩।‌ ফাস্ট মেমোরি কার্ড ব্যবহার করুনঃ

অনেকের ইন্টারনাল স্টোরেজ কম থাকার কারণে মেমোরি কার্ড বা মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু সস্তা ব্র্যান্ডের মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহার করার কারণে আপনাদের মোবাইল ফোন স্লো হয়ে যায়। 

সে ক্ষেত্রে অবশ্যই ভালো ব্র্যান্ডের ফাস্ট মেমোরি কার্ড ব্যবহার করবেন। মেমোরি কার্ড ব্যবহারের সময় কার্ডের স্পীড এবং আপনার মোবাইলের ধারণ ক্ষমতা বিবেচনায় রাখবেন। তাহলে আপনার শখের মোবাইলটি আর স্লো হবে না। 

৪। অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ আনইনস্টল করুনঃ

একটা মোবাইলকে স্লো করার সবথেকে বড় বদঅভ্যাস হচ্ছে অপ্রয়োজনীয় অ্যাপস ইনস্টল করে রাখা। এমন অনেক অ্যাপস আছে যা আপনি মাসে ১ বার ব্যবহার করেন। এরকম অ্যাপ্লিকেশন ফোনে অসংখ্য ইন্সটল করে রাখছেন! 

এরকম অপ্রয়োজনীয় এপ্লিকেশন আপনার ফোনে ইনস্টল রেখে আপনার মোবাইল ফোন স্লো করার প্রশ্নই আসে না। তাই যে অ্যাপ্লিকেশনগুলো ব্যবহার করেন না বা অনেকদিন পর পর ১ বার ব্যবহার করেন, আমি রিকমেন্ড করব সেগুলো আনইন্সটল করে যখন প্রয়োজন তখন ইন্সটল দিয়ে ব্যবহার করে পুনরায় আনইন্সটল করে দিবেন। সে ক্ষেত্রে আপনার ফোন ফাস্ট থাকবে।

৫। নির্দিষ্ট সময় পর ফোন রিসেট করুনঃ

প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের মতে ৪ থেকে ৬ মাস পরপর ফোন রিসেট করা উচিত। অথচ দেখা যায় আমরা বছরের পর বছর মোবাইল ব্যবহার করি কিন্তু ফোন রিসেট করিনা। যখন আমরা ফোনটাকে রিসেট করি তখন ফোনের সমস্ত কার্যক্রম আবার প্রথম থেকে শুরু হয়।

মোবাইলকে রিসেট করলে মোবাইলের যাবতীয় টেম্পোরারি ফাইল ডিলিট হয়, কুকিজ ডিলিট হয়, ট্রাকার রিমুভ হয়। যার ফলে আপনার মোবাইলটা পুনরায় প্রাণ ফিরে পায়। ‌চেষ্টা করবেন চার থেকে ছয় মাস পর পর অন্ততঃ একবার ফোনটাকে রিসেট করা।


এভাবে উপরের এই পাঁচটা স্টেপকে ফলো করে আপনার স্লো মোবাইলটাকে ফাস্ট করতে পারেন। আমি মনে করি উপরের এই বিষয়গুলো যদি আপনি মেনে চলেন তাহলে অবশ্যই আপনার স্লো মোবাইলটা ফাস্ট করতে পারবেন। ধন্যবাদ। 

স্মার্টফোনে স্ক্রিনশট নেওয়ার ৭ টি উপায়

৭ ফ্রি এন্ড্রয়েড ফাইল ম্যানেজার | 7 Free Android File Manage

অনলাইনে ডিজিটাল পাসপোর্ট বা ই পাসপোর্ট করার নিয়ম ও খরচ ২০২২ বিস্তারিত ছবি সহ

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top