script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-9028963340093233" crossorigin="anonymous"> #autoAds
ফটোগ্রাফি করে আয় করুন সহজে

ফটোগ্রাফি করে আয় করুন সহজে

ফটোগ্রাফি করে আয় করার সহজ কিছু উপায় নিয়ে আজকের এ আর্টিকেল। এক সময় ফটোগ্রাফিকে শুধু শখ হিসেবে দেখা হলেও বর্তমানে ফটোগ্রাফি করে আয় করার অসংখ্য কার্যকর উপায় রয়েছে। আপনি যদি ফটোগ্রাফিতে দক্ষ হন, তাহলে ফটোগ্রাফি করে আয় করা আপনার জন্য দারুণ একটি সুযোগ হতে পারে।

করে আয়

কিভাবে ফটোগ্রাফি করে আয় করা যেতে পারে তার ৯টি উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত চলুন জেনে নিই।

ফটোগ্রাফি সার্ভিস

ফটোগ্রাফি কেন্দ্রিক সার্ভিস প্রদান করা সবচেয়ে সহজ আর কার্যকর উপায় ফটোগ্রাফি করে আয় করার জন্য। একজন ফটোগ্রাফার বিভিন্ন ধরনের ফটোগ্রাফি ভিত্তিক সেবা প্রদান করে আয় করতে পারেন।

ওয়েডিং ফটোগ্রাফি করে আয়  আমাদের দেশে ফটোগ্রাফারদের আয়ের ১টি সেরা উৎস। ওয়েডিং ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে সামান্য কিছু সময় দিয়ে বেশ চমৎকার মানের আয় করা যায়। এছাড়াও নিজের ফটোগ্রাফি ভিত্তিক সার্কেল বড় করতেও ওয়েডিং ফটোগ্রাফি বেশ কাজে দেয়।

ওয়েডিং ফটোগ্রাফির সাথে ফ্যাশন ফটোগ্রাফি, ইভেন্ট ফটোগ্রাফি, পোর্ট্রেইট ফটোগ্রাফি, ইত্যাদিও বেশ জনপ্রিয়। স্থানীয়ভাবে যেকোনো জায়গাতেই এসব কাজের জন্য ফটোগ্রাফার এর ভালোই ডিমান্ড রয়েছে। ১টি এফবি পেজ তৈরী করে আপনি যেসব ধরনের ফটোগ্রাফি করেন সেগুলো সার্ভিস হিসেবে এড করে ক্লায়েন্ট পেতে পারেন অত্যন্ত সহজেই।

স্টক ফটোগ্রাফি করে আয়

স্টক ফটোগ্রাফি করে আয় করা বেশ সহজ। এর মাধ্যমে চমৎকার মানের আয় করা সম্ভব। স্টক ফটোগ্রাফির সুবিধাটা হচ্ছে যে একবার কাজ করার পরেই স্টক ফটোগ্রাফি হতে পর্যাক্রমিক ভাবে আয় হতে থাকবে।

স্টক ফটোগ্রাফি হচ্ছে কমন সব ফটোর জন্য ব্যবহারকৃত একটি টার্ম। মূলত সংবাদ মাধ্যম, ব্লগ অথবা ওয়েবসাইটসমুহ তাদের ভিজ্যুয়াল কনটেন্ট এর প্রয়োজনে স্টক ফটোগ্রাফির উপর নির্ভর করে থাকে।

অনলাইনে অগণিত স্টক ফটোগ্রাফি ওয়েবসাইট আছে। সেখানে আপনার তোলা পিকচার গুলো আপলোড করে সেটা হতে নিয়মিত আয় করা সম্ভব। জনপ্রিয় কতিপয় স্টক ফটোগ্রাফি বিক্রি করার ওয়েবসাইট নিয়ে নিচে আলোচনা করা হলো।

এডোবি স্টক

ফটোগ্রাফি করে আয় করার উপায়

ফটোশপ, প্রিমিয়ার প্রো, আফটার ইফেক্টস এর মত দারুণ সকল যুগান্তকারী সফটওয়্যার এর পাশাপাশি স্টক ইমেজও বিক্রি করে থাকে এডোবি। এডোবি স্টক পিকচারের পাশাপাশি গ্রাফিক ডিজাইন করে আঁকা ইলাস্ট্রেশনও বিক্রি করা যায়। এডোবি প্রদত্ত নির্দেশনা অনুসরণ করে যেকেউ এডোবি স্টক এই ফটো বিক্রি করতে পারবেন। আপলোডকৃত ছবি বিক্রি হলে অর্জিত টাকা থেকে একটি নির্দিষ্ট অংকের কমিশন গ্রহণ করে এডোবি স্টক। এভাবে আপনি সহজেই ফটোগ্রাফি করে করতে পারবেন।

শাটারস্টক

স্টক ফটোগ্রাফির মাধ্যমে আয় করার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় ওয়েবসাইট হচ্ছে শাটারস্টক। শাটারস্টক এর দ্বারা ফটোগ্রাফি করে আয় করতে হলে প্রথমেই একাউন্ট খুলে কন্ট্রিবিউটর হওয়ার জন্য আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। কন্ট্রিবিউটরদেরকে ক্ল্যায়েন্টের সাবস্ক্রিপশন টাইপের ওপর ভিত্তি করে শাটারস্টক তাদের টাকা-পয়সা প্রদান করে থাকে।

ফ্রিল্যান্স ফটোগ্রাফি করে আয়

ফটোগ্রাফির পাশাপাশি আপনি যদি বিভিন্ন ধরনের ফটোগ্রাফি রিলেটেড সার্ভিস, যেমনঃ রিটাচিং, পিকচার এডিটিং প্রভৃতি পারেন, তাহলে ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমেও ফটোগ্রাফি থেকেই আয় করা সম্ভব। ফাইভার এবং আপওয়ার্ক এর মতো নানারকম ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে ফটোগ্রাফি রিলেটেড বিভিন্ন ধরনের সার্ভিসের অনেক ডিমান্ড রয়েছে।

ইউটিউব

বর্তমানে আপনি যে কাজেই জড়িত থাকুন না কেনো, ইউটিউব হতে আয় করার পথ সবার জন্যই খোলা। আপনি জেনে সন্তুষ্ট হবেন, ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম অনেক সহজ। আপনি যদি একজন ফটোগ্রাফার হন, ইউটিউব হতে একের অধিক উপায়ে আয় বা আয় করার পাশাপাশি আপনার ফটোগ্রাফি সার্ভিসের মার্কেটিং এবং বিস্তার ও হয়ে যাবে।

আপনার যদি প্রচুর অভিজ্ঞতা হয়ে থাকেন ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে, তাহলে ইউটিউবে টিউটোরিয়াল ভিডিও আপলোড করতে পারেন। এছাড়াও ফটোগ্রাফি করার সময় আপনি ক্যামেরার পেছনের গল্প গুলো নিয়েও ভিডিও বানাতে পারেন।

ক্যামেরা রিভিউও করতে পারেন নানারকম স্পন্সর এর হেল্প নিয়ে। আবার ফটোগ্রাফি রিলেটেড অন্যান্য ব্যাপারগুলো, উদাহরণসরূপ পিকচার এডিটিং অথবা রিটারচিং, ইত্যাদিও আপনার ইউটিউব চ্যানেলের শিখিয়ে আয় করতে পারেন।

ফটোগ্রাফি করে আয় – লাইসেন্সিং

আপনার সর্বসেরা ফটোগ্রাফিগুলো লাইসেন্স করেও আয় করতে পারবেন ফ্লিকার এর মাধ্যমে। ফ্লিকার একটি পিকচার শেয়ার করার প্ল্যাটফর্ম হলেও এর লাইসেন্সিং ফিচার ফটোগ্রাফারদের জন্য আয়ের রাস্তা সুগম করে দিয়েছে।

ফ্লিকার মূলত গেটি ইমেজেস এর মাধ্যমে ফটো লাইসেন্স করতে ফটোগ্রাফারদের সহযোগিতা করে। যখনই কেউ লাইসেন্স করা ছবি দেখে বা কিনে, সেই সময় তা হতে অর্জিত টাকা-পয়সা ফটোগ্রাফারদের প্রদান করে ফ্লিকার। ফ্লিকার এর লাইসেন্সিং ফিচারকে আপনি অনেকটা স্টক ফটোগ্রাফিও বলতে পারেন।

তবে ফ্লিকারের দ্বারা ফটোগ্রাফি করে আয় করতে হলে ফ্লিকার এ ফটো আপলোড করার পর ফটোর পেজে থাকা “Reuqest to License” এ ক্লিক করে আপনি সহজেই ফটোর লাইসেন্সের জন্য অ্যাপ্লাই করতে পারেন। তারপর আপনার আবেদনকৃত ছবিটি গেটি ইমেজেস এর রিভিউ এর পর এপ্রুভ হলে তারা ফটোগ্রাফারের সঙ্গে যোগাযোগ করবে ফটোর রিলিজ, পারমিশন, প্রাইসিং, প্রভৃতি নিয়ে আলোচনা করতে।

অন্যকে শেখানো

অন্যান্য সকল স্কিল এর পাশাপাশি ফটোগ্রাফি শেখার জন্য অনেকেরই অধির উৎসাহ রয়েছে। আপনার যদি মনে হয় আপনি অনেক ভালো ফটোগ্রাফি বুঝেন, তাহলে অন্যদের ফটোগ্রাফি শেখানোর মাধ্যমেও আয় করতে পারেন।

এই ফটোগ্রাফি শেখানোর কাজ অনলাইন এবং অফলাইন, দুই পদ্ধতিতেই করা যাবে। ইন্টারনেটে ইউটিউবে ফটোগ্রাফি টিউটোরিয়াল আপলোড করতে পারেন। আবার চাইলে ফটোগ্রাফির সুনির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর কেন্দ্র করে কোর্স প্রস্তুত করে তা বিক্রিও করতে পারেন।

যারা অনলাইনের পাশাপাশি ফটোগ্রাফি শিখতে চায়, তাদের সবাইকে সুনির্দিষ্ট অংকের টাকার বিনিময়ে ফটোগ্রাফি হাতে কলমে শেখাতে পারেন। এছাড়াও ভিন্ন ফটোগ্রাফারদের এসিস্ট করার মাধ্যমে আয় করার পাশাপাশি আপনার পোর্টফোলিও বড় করার সুযোগও থাকছে। এভাবে কাজের রিলেশন স্থাপনের পাশাপাশি কাজ পাওয়ার সম্ভাবনাও বাড়ে।

ফটোগ্রাফি করে আয় – ব্লগিং

ইন্টারনেট ইউজারগণ যে বিষয় ভালোবাসেন, তা নিয়ে ব্লগ পোস্টসমুহ পড়তে লাইক করেন। ফলস্বরূপ ইন্টারনেটে যেকোনো বিষয়ে ব্লগের বিপুল ডিমান্ড দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছেন। ফটোগ্রাফি রিলেটেড আপনার জ্ঞান, অভিব্যাক্তি প্রভৃতি একটি ব্লগ খুলে সেখানে পোস্ট করতে পারেন। ওয়েবসাইট খুলে ব্লগ পোস্ট করার পর ব্লগে এডস দেখিয়ে আয় করতে পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া

আপনার তোলা সর্বসেরা ফটোগুলো অবশ্যই ছবির পৃথিবী বলে বিবেচনা করা ইন্সটাগ্রামে আপলোড করতে ভুলবেন না কিন্তু। এতে ফটোগ্রাফি নিয়ে আপনার দক্ষতার প্রচারের পাশাপাশি আপনার কাজের নব মাধ্যম ও খুলে যেতে পারে। ইন্সটাগ্রাম বা এই ধরনের ফটোগ্রাফি বিষয়ক ওয়েবসাইট মূলত আপনার কাজের দক্ষতার একটি প্রমাণস্বরূপ হিসেবে কাজ করবে, যাহার ফলে আপনার এ তালিকায় উক্ত কাজসমুহ পেতে প্রচুর সুবিধা হবে।

ফটোগ্রাফি কনটেস্ট

অন্যান্য বিষয়ের মত ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রেও বিভিন্ন কনটেস্ট বা প্রতিযোগিতা সবসময় চলতে থাকে। এসব কনটেস্টে মূলত নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর ফটোগ্রাফি করতে হয় এবং যার ফটো বিজয়ি বলে ঘোষণা হয়, তাদের কনটেস্ট উইনার ঘোষণা করে টাকা-পয়সা ও আদার্স সামগ্রী প্রদান করা হয় পুরস্কার হিসেবে।

আপনি যদি ফটোগ্রাফি কনটেস্ট জিততে পারেন, তাহলে কম সময়ে ফটোগ্রাফি এর দ্বারা প্রচুর আয় করার অন্যতম সর্বসেরা উপায় হবে এটি। ইন্টারনেটে সার্চ করলে দেশী বিদেশী নানারকম ফটোগ্রাফি কনটেস্ট এর খোঁজ পেয়ে যাবেন।

ফটোগ্রাফি করে আয় করার আপনার নিজস্ব আইডিয়া থাকলে কমেন্ট করে জানাবেন। ফটোগ্রাফি করে আয় বিষয়ক ভবিষ্যত পোস্টে আমরা সেটা তুলে ধরবো।

 

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার ১৫টি উপায়

ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?

কিভাবে বিনামূল্যে উইন্ডোজ ১০ বা উইন্ডোজ ১১ ব্যবহার করবেন

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top